List of rabindra_sangeet

আমার পরাণ যাহা চায়
আমার সোনার বাংলা
আমার এই পথ-চাওয়াতেই আনন্দ
আমার হিয়ার মাঝে লুকিয়ে ছিলে
আজি ঝরো ঝরো মুখর বাদল দিনে
আমি চিনি গো চিনি তোমারে ওগো
আমি তোমার প্রেমে হব সবার কলঙ্কভাগী।
বাদল দিনের প্রথম কদম ফুল করেছ দান
বাংলার মাটি, বাংলার জল, বাংলার বায়ু, বাংলার ফল-
ভালোবেসে সখী, নিভৃতে যতনে আমার নামটি লিখো তোমার মনের মন্দিরে
বঁধু, কোন আলো লাগল চোখে!
দূরে কোথায় দূরে দূরে
একি লাবণ্যে পূর্ণ প্রাণ, প্রাণে সহে,
একটুকু ছোঁয়া লাগে, একটুকু কথা শুনি- তাই দিয়ে মনে মনে রচি মম ফাল্গুনী।।
আজি বাংলাদেশের হৃদয় হতে কখন আপনি
এসো আমার ঘরে।
এসো, এসো, এসো হে বৈশাখ
এসো নীপবনে ছায়াবীথিতলে, এসো করো স্নান নবধারাজলে।।
ফাগুন, হাওয়ায় হাওয়ায় করেছি যে দান-
গ্রামছাড়া ওই রাঙা মাটির পথ আমার মন ভুলায় রে
হার-মানা হার পরাব তোমার গলে
যেতে যেতে একলা পথে
জাগরণে যায় বিভাবরী
যখন পড়বে না মোর পায়ের চিহ্ন এই বাটে
কে রঙ লাগালে বনে বনে।
কোথাও আমার হারিয়ে যাওয়ার নেই মানা মনে মনে।
কতবার ভেবেছিনু আপনা ভুলিয়া তোমার চরণে দিব হৃদয় খুলিয়া।
মাঝে মাঝে তব দেখা পাই, চিরদিন কেন পাই না।
মম চিত্তে নিতি নৃত্যে কে যে নাচে তাতা থৈথৈ, তাতা থৈথৈ, তাতা থৈথৈ।
মনে রবে কি না রবে আমারে সে আমার মনে নাই মনে নাই
মোর ভাবনারে কী হাওয়ায় মাতালো,
পুরানো সেই দিনের কথা ভুলবি কি রে হায়
শাঙন গগনে ঘোর ঘনঘটা,নিশীথযামিনী রে।
স্বার্থক জনম আমার জন্মেছি এই দেশে স্বার্থক জনম, মা গো, তোমায়
সকাতরে ওই কাঁদিছে সকলে, শোনো শোনো পিতা।
শুধু তোমার বাণী নয় গো, হে বন্ধু, হে প্রিয়,
তোমার খোলা হাওয়া লাগিয়ে পালে টুকরো করে কাছি
তুমি কি কেবলই ছবি, শুধু পটে লিখা। ওই-যে সুদূর নীহারিকা
তুমি কোন্‌ ভাঙনের পথে এলে সুপ্তরাতে
তুমি রবে নীরবে হৃদয়ে মম
ভালোবাসি, ভালোবাসি- এই সুরে কাছে দূরে জলে স্থলে বাজায় বাঁশি।।
কোথাও আমার হারিয়ে যাওয়ার নেই মানা মনে মনে
আমি চিনি গো চিনি তোমারে ওগো বিদেশিনী।
এসো হে বৈশাখ
কে  রঙ লাগালে বনে বনে। ঢেউ জাগালে সমীরণে॥
আকাশ হতে আকাশ-পথে হাজার স্রোতে
আকাশ জুড়ে শুনিনু ওই বাজে তোমারি নাম সকল তারার মাঝে।।
আজি বিজন ঘরে নিশীথরাতে আসবে যদি শূন্য হাতে –
আকাশ আমায় ভরল আলোয়, আকাশ আমি ভরব গানে ।
একটা সময় তোরে আমার সবই ভাবিতাম
বড় ইচ্ছে করছে ডাকতে, তার গন্ধে মেঘে ঢাকতে,
আরো গভীরে যদি যেতে আমার প্রতি ভাবনায়,
ধাঁধার থেকেও জটিল তুমি খিদের থেকেও স্পষ্ট
আকাশে ছড়ানো মেঘের কাছাকাছি দেখা যায় তোমাদের বাড়ি
আমি ডানদিকে রই না আমি বামদিকে রই না
এলো কি এ অসময় মনে শুধু জাগে ভয়
তারাগুলো ভেসে ভেসে মেঘের মাঝে লুকিয়ে গেছে
তুই, তোকে কি, বলে ডাকি, চলে গেলি, হাহাকার, হয়ে থাকিস আমার।
একটু একটু করে প্রতিদিন বদলায় সব বদলায় না দেখো তবু এ মাতাল অনুভব
এই ধুলো ধুলো শহর তোমার। আমার। আসতে পার।
উজ্জ্বল করো হে আজি
উঠি চলো সুদিন আইলো
কবিতা : নাচার || কবি : অন্নদাশঙ্কর রায়
কবিতা : বাদুড়ঝোলা || কবি : অন্নদাশঙ্কর রায়
কবিতা : নেমন্তন্ন || কবি : অন্নদাশঙ্কর রায়
অন্য রঙের ভালবাসা
ডাকব না ডাকব না
ডাকিছ কে তুমি তাপিত জনে
ডাকিছ শুনি জাগিনু প্রভু
ডাকিল মোরে জাগার সাথি
ডাকে বার বার ডাকে
ডাকো মোরে আজি এ নিশীথে
ডুবি অমৃতপাথারে
ডেকো না আমারে ডেকো না
ঢাকো রে মুখ চন্দ্রমা জলদে
থাক তবে থাক এই মায়া
থাক তবে থাক তুই পড়ে
থাকতে আর তো পারলি নে মা
থামাও রিমিকি-ঝিমিকি বরিষন
থামো থামো কোথায় চলেছ পালায়ে
থাম্‌ থাম্‌ কী করিবি বধি পাখিটির প্রাণ
থাম্‌ রে থাম্‌ রে তোরা ছেড়ে দে
ইচ্ছে ইচ্ছে
উতল হাওয়া লাগল আমার
উদাসিনী-বেশে বিদেশিনী কে সে
উড়িয়ে ধ্বজা অভ্রভেদী রথে
ধনে জনে আছি জড়ায়ে হায়
ধরণীর গগনের মিলনের ছন্দে
ধরা দিয়েছি গো
ধরা সে যে দেয় নাই
ধর্‌ ধর্‌ ওই চোর ওই চোর
ধায় যেন মোর সকল ভালোবাসা
ধিক্‌ ধিক্‌ ওরে মুগ্ধ
ধীরে ধীরে ধীরে বও
ধীরে ধীরে প্রাণে আমার
ধীরে বন্ধু গো ধীরে ধীরে
ধূসর জীবনের গোধূলিতে
ধূসর জীবনের গোধূলিতে ক্লান্ত আলোয়
ধ্বনিল আহবান মধুর গম্ভীর
একটু ভেবে জানিও || অর্পিতা মন্ডল
কবিতা : অভিযান || কবি : দেবাশিস রায়
কবিতা : ভরসা নেই || কবি : বিশ্বজিৎ কুন্ডু
কবিতা : কাঁদিস না মা || কবি : বিশ্বজিৎ কুন্ডু
কবিতা : আবু তোকে চিনতে পারিনি || কবি : অর্পিতা মন্ডল
অনুগল্প : ভালো থাকিস || অর্পিতা মন্ডল
নতুন ভোর || দেবাশিস রায়
হে সহিষ্ণু,তুমি মরো ||উৎপল সিনহা
কবিতা : বিরহ মুহূর্তে || কবি : লক্ষ্মীকান্ত মন্ডল